November 30, 2021, 6:08 am

News Headline :
টাঙ্গাইলের ১৫টির মধ্যে ১০ ইউপিতে নৌকার জয় প্রথম বারের মতো আধুনিক মানের জিমনেসিয়াম মাল্টি ফিটনেস ক্লাব এর শুভ উদ্বোধন। মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার ৩৮ তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত বাঘাইছড়িতে। ভালুকায় পাঁচশত দুস্থ মানুষকে ফ্রী চিকিৎসা সেবা ইউপি নির্বাচনে রামুতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যারা নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে আসছে ইলেক্ট্রনিক ট্রেন কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্র তৈরির কারখানার সন্ধান, তিন জন রোহিঙ্গা অস্ত্র কারিগরকে আটক। রামুর চাকমারকুল অগ্নিকান্ডে ৬টি বাড়িপুড়ে ছাই। মরিচ্যা চেকপোস্ট ৫০ হাজার পিস ইয়াবাসহ ৩ জনকে আটক। ভালুকা সড়ক দুর্ঘটনায় যুবক নিহত কক্সবাজারে ৬ মামলার আসামি গ্রেফতার। ভালুকায় ৫০ তম জাতীয় সমবায় দিবস পালিত ঈমানদারের জন্য বছরের প্রতিটি দিনই ঈদে মিলাদুন্নবী ভারতের বনগাঁ কালিতলা পার্কিংয়ে চাঁদা আদায় বেনাপোল স্হল বন্দরে প্রবেশের অপেক্ষায় আমদানি পণ্য নিয়ে দাঁড়িয়ে সাত হাজার ট্রাক। ভালুকায় পরিক্ষা কেন্দ্র উদ্বোধন ভালুকায় জেল হত্যা দিবস পালিত ভালুকায় শিক্ষার্থীর রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কর্মসূচি ফিশিং বোটে সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ১৪ জন অগ্নি দগ্ধ। কক্সবাজার জেলায় অভিযানে ইয়াবা সহ একজন নারী মাদক কারবারি গ্রেফতার। ‘কমিউনিটি পুলিশিং ডে সম্মাননায়’ ভূষিত হলেন মোকলেসুর রহমান যশোর করোনার টিকা পরিদর্শন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। ইমিগ্রেশন বেনাপোল চেকপোষ্টে সাড়ে ৯ লক্ষ টাকার ভারতীয় উন্নত মানের আংটির পাথর উদ্ধার। যশোরের শার্শা থানা পুলিশের “কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২১” পালন । ভালুকায় হাইওয়ে পুলিশের উদ্যোগে কমিউনিটি পুলিশিং ডে পালন টাঙ্গাই‌লের ঘাটাইলে এক বাসা থেকে তিনজ‌নের মর‌দেহ উদ্ধার যশোরের শার্শায় ১০০ বোতল ফেনসীডিল ও ইজিবাইক সহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক। ভালুকায় কমিউনিটি পুলিশের আনন্দ শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেন আগামী ডিসেম্বরে মাসে পুনরায় চালু হচ্ছে। -মহাপরিচালক ধীরেন্দ্রনাথ মজুমদার যশোরের শার্শায় নারীর শরীরে বিশেষ কায়দায় বাঁধা দুই কেজি গাঁজা সহ এক নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক। ঈদগাঁও উপজেলা কমপ্লেক্সের জন্য ইসলামাবাদে পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক মামুনুর রশীদ।

নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে আসছে ইলেক্ট্রনিক ট্রেন

নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে আসছে ইলেক্ট্রনিক ট্রেন

বাংলাদেশের প্রথম রেলপথ হিসেবে নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে ইলেক্ট্রনিক ট্রেন চালু করতে প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। আধুনিক এই ট্রেনের সুবিধা আরও বিস্তৃত করতে নারায়ণগঞ্জ জেলাকেও যুক্ত করা হচ্ছে এর সঙ্গে। এ জন্য ইলেক্ট্রনিক ট্র্যাকশন নির্মাণে সমীক্ষা শুরু করতে যাচ্ছে রেলওয়ে। সমীক্ষা প্রকল্প সম্পাদন করতে দ্রুত সময়ে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেওয়ার কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন রেলওয়ের কর্মকর্তারা। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান- প্রতিবেশী দেশ ভারত অনেক আগেই ইলেক্ট্রনিক ট্রেন চালু করলেও বাংলাদেশে ইলেক্ট্রনিক ট্র্যাকশন না থাকায় এই ট্রেন চালু করা যায়নি।

২০১৬ সালে নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে ইলেক্ট্রনিক ট্রেন প্রবর্তনের জন্য আলোচনা শুরু করে রেলওয়ে। এ সম্পর্কিত একটি সমীক্ষা প্রকল্পের ওপর ওই বছরেই পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। তবে নানা জটিলতায় সেই সময় আলোর মুখ দেখেনি এই প্রকল্প। নানা জটিলতা শেষে সম্প্রতি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-চট্টগ্রাম সেকশনে ইলেক্ট্রনিক ট্রেন চালু করতে ইলেক্ট্রনিক ট্র্যাকশন নির্মাণে একটি সমীক্ষা প্রকল্প অনুমোদন করে।

এখন সমীক্ষা প্রকল্প সম্পাদনের জন্য একটি অভিজ্ঞ পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের কাজ চলছে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন রেলওয়ের প্রধান পরিকল্পনা কর্মকর্তা এস.এম সলিমুল্লাহ বাহার। এস.এম সলিমুল্লাহ বাহার জানান, দেশের প্রথম রেলপথ হিসেবে নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে ইলেক্ট্রনিক ট্র্যাকশন নির্মাণ করা হচ্ছে।

এজন্য সমীক্ষা করতে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। আমরা এখন পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের লক্ষ্যে কাজ করছি। দ্রুত সময়ে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেওয়া হবে। শীঘ্রই শুরু হবে সমীক্ষার কাজ। পরামর্শক প্রতিষ্ঠান প্রকল্পের কারিগরি, আর্থিক, পরিবেশগত ও সামাজিক বাস্তবোপযোগিতা বিশ্লেষণ, বিশদ প্রকৌশলগত নকশা প্রণয়ন, বিশদ ব্যয় প্রাক্কলন প্রস্তুত, ডিপিপি ও টেন্ডার ডকুমেন্ট প্রস্তুত, পরিবেশের ওপর প্রভাব মূল্যায়ন, ভূমি অধিগ্রহণ ও ক্ষতিগ্রস্ত লোকজন পুনর্বাসন পরিকল্পনাসহ আনুষঙ্গিক বিভিন্ন কাজ সম্পাদন করবে। এরপর মূল কাজে হাত দেওয়া হবে।

প্রকল্প সংশ্লষ্ট কর্মকর্তারা জানান- নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে ওভারহেড ক্যাটেনারি ও সাবস্টেশনসহ ইলেক্ট্রনিক ট্র্যাকশন নির্মাণের জন্য অনুমোদিত সমীক্ষা প্রকল্পে খরচ হবে প্রায় ১৫ কোটি টাকা। চলতি বছরের নভেম্বর থেকে আগামী ২০২৩ সালের ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত এই সমীক্ষা প্রকল্পটি বাস্তবায়নের মেয়াদ ধরা হয়েছে। এর মধ্যেই সমীক্ষা সংক্রান্ত কাজ শেষ করা হবে।

সমীক্ষা শেষে মূল প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা গেলে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে চলাচল করা ট্রেনগুলো পরিচালনা করতে প্রায় ৩৫ শতাংশ খরচ কমবে। যাতায়াতে সময় কমবে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ। রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় কমবে ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ। পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর কার্বন নিঃসরণ কমবে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ। এসবের পাশাপাশি প্রকল্পটি রেলওয়ের রাজস্ব আয় বাড়াতেও ভূমিকা রাখবে।

এর কারণ হিসেবে রেল কর্মকর্তারা বলছেন- ইলেক্ট্রনিক ট্রেন সর্বোচ্চ ওজন বহনে সক্ষম এবং পরিবেশবান্ধব। পাশাপাশি এই ট্রেনগুলোর পরিবহন ব্যয়ও কম। মাত্র চার ইউনিট বিদ্যুতে এক কিলোমিটার পথ পাড়ি দেওয়া যাবে। প্রতি ইউনিট খরচ ১০ টাকা হলে এক কিলোমিটারে খরচ হবে মাত্র ৪০ টাকা। যেখানে ডিজেল চালিত ট্রেনে প্রতি কিলোমিটার জ্বালানি খরচ হাজার টাকারও বেশি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




All Rights Reserved: Duronto Sotter Sondhane (Dusos)
Design by Raytahost.com