June 1, 2019

সরকারি খাদ্য গুদামের রক্ষকই ভক্ষক, চাল পাচারকালে হাতেনাতে আটক

মাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলার টেকেরহাট খাদ্য গুদামের চাল পাচারকালে হাতেনাতে দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় শনিবার সকালে গুদামের রক্ষকসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন রাজৈর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান। স্থানীয়রা জানায়, মাদারীপুরের টেকেরহাট সরকারি খাদ্য গুদামের রক্ষক গাজী সালাউদ্দিনসহ কয়েক কর্মকর্তা-কর্মচারি দীর্ঘদিন ধরে চাল পাচার করে আসছিল। শুক্রবার দুপুরে গুদামে রক্ষিত প্রতি চালের বস্তা থেকে ৩-৪ কেজি চাল বের করছিলেন তারা। এ সময় স্থানীয়রা বিষয়টি টের পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে খবর দিলে তিনি পুলিশ নিয়ে এসে সেলিম শেখ ও মমরাজ মৃধা নামে দুই কর্মচারিকে আটক করেন। জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা চাল পাচারের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, গুদাম রক্ষক গাজী সালাহ উদ্দিনের নির্দেশে আমরা বস্তা থেকে চাল বের করেছিলাম। আমরা তার চাকরি করি। তাই তার হুকুম মানতে হয়েছে। তবে গাজী সালাহ উদ্দিন চাল পাচারে জড়িত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। এ ব্যাপারে টেকেরহাট খাদ্য গুদামের ঠিকাদার উজির শেখ বলেন, বিষয়টি টের পেয়ে আমরা ইউএনওকে খবর দিলে তিনি এসে দুইজনকে হাতেনাতে আটক করেন। দীর্ঘদিন থেকেই একটি চক্র এই অপকর্ম করে আসছিল। রাজৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহানা নাসরিন বলেন, একটি চক্র গুদামের প্রতি বস্তা থেকে ৩-৪ কেজি চাল বের করে আলাদা বিক্রি করছিল। চাল পাচারের খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে এসে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। এ ঘটনায় গুদাম সিলগালা ও জেলা প্রশাসকের অনুমতিক্রমে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বর্তমানে দায়িত্বপ্রাপ্ত গুদাম রক্ষককে দায়িত্ব পালন থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। তিনজনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. জামাল উদ্দিন বলেন, বিষয়টি শুনে আমি জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রককে নির্দেশ দিয়েছি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য। সেই হিসেবে শনিবার সকালে রাজৈর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান বাদি হয়ে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। তাদের মধ্যে দুইজন গ্রেফতার রয়েছে। রাজৈর থানার ওসি শাহজাহান মিয়া বলেন, রাজৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার লিখিত অনুমতিতে হাফিজুর রহমান বাদি হয়ে মামলা করলে সেটি আমলে নেওয়া হয়। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *