Breaking News
October 22, 2019 - যোগ্যতা ধরে রাখতে ব্যর্থ হলে এমপিও বাতিল : শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।
October 22, 2019 - প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘চলাফেরার সময় পথচারীদের যেমন দায়িত্ব আছে, তেমনি চালকদেরও দায়িত্ব আছে।
October 20, 2019 - যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
October 20, 2019 - মাদক, সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে। কেউ অন্যায় করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
October 20, 2019 - ওমর ফারুককে ছাড়াই গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যুবলীগের বৈঠক শুরু।
October 20, 2019 - ‘জনগণ ভোট দিতে পারেনি’ মেননের বক্তব্যের জবাব দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
October 20, 2019 - যুবলীগের সপ্তম কংগ্রেস বিষয়ে বৈঠকে আজ বিকেলে বসছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
October 19, 2019 - আওয়ামী লীগের সম্মেলনের ব্যাপারে কোনো আপস নেই, এখানে পরিবর্তন হবে, নতুন মুখ আসবে। -সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের
October 19, 2019 - যেখানে অনিয়ম, দুর্নীতি হচ্ছে সেখানেই অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এসব কথা বলেছেন।
October 19, 2019 - জঙ্গিবাদ নির্মূলে কাজ চললেও ঝুঁকি রয়ে গেছে: বলে সতর্কবার্তা দিয়েছেন পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম।
October 19, 2019 - অশ্রুসিক্ত হয়ে পড়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
October 18, 2019 - ভুল বোঝাবুঝির কারণে সীমান্তে গুলিবিনিময়, বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।
October 17, 2019 - মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আগামী রবিবার যুবলীগের সম্মেলনের বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিবেন।

সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের ৮০ লাখ টাকার সরঞ্জাম ৭ কোটি টাকায় ক্রয় !

Spread the love

৮০ লাখ টাকার সরঞ্জাম ৭ কোটি টাকায় ক্রয়, অসম্পূর্ণ ভবন অথচ প্রতিনিধি দল যন্ত্রপাতি আনতে জার্মানি যাচ্ছে ! এ যেনো রূপপুরের বালিশ কাহিনিকে হার মানিয়েছে, সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের ১৪ তলা ভবনই হয়নি অথচ যন্ত্রপাতি আনতে ছয় সদস্যের প্রতিনিধি দল জার্মানি যাচ্ছে, আগের কেনা যন্ত্রপাতি ব্যবহার না করে পরিত্যক্ত ঘোষণা করে আবার ক্রয়, ৮০ লাখ টাকার সরঞ্জাম কেনা হয় ৭ কোটিতে ! সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের ১৪ তলা ভবনেরই খবর নেই অথচ এই হাসপাতাল ভবনের জন্য যে যন্ত্রপাতি কেনা হবে তা দেখতে ও যাচাই-বাছাই করতে জার্মানি যাচ্ছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল। তারা জার্মানির লুবেক শহরে অবস্থিত ড্রাগারওয়ের্ক কোম্পানির কারখানা পরিদর্শন করবেন। যেসব মেশিন আনা হবে সেগুলো কীভাবে স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ করা হবে সে বিষয়ে ধারণা অর্জনের উদ্দেশ্যে কর্মকর্তাদের এই সফর। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখা সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য। রূপপুরের বালিশ কাহিনিকেও হার মানিয়েছে সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল। এই হাসপাতালের ১৪ তলা ভবন নির্মাণ তো দূরের কথা, এখনো অনুমোদনই পায়নি। অথচ সরকারি অর্থের অপচয় করে দেদারসে মেডিকেল যন্ত্রপাতি কিনছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ, যা রীতিমতো তুঘলকি কারবার। হাসপাতাল ভবন নির্মাণের কাজ শেষ হওয়ার আগেই এর মেডিকেল যন্ত্রপাতি কিনতে শুরু করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ! ইতিমধ্যে অনেকগুলো যন্ত্রপাতি কেনাও হয়েছে। এমনকি ৮০ লাখ টাকার যন্ত্র কেনা হয়েছে ৭ কোটি টাকায়, যেগুলো কোনো কাজেই আসছে না ! উল্টো এগুলো অব্যবহৃত থাকতে থাকতে অকেজো হয়ে পড়েছে। কোনো কোনোটি একেবারেই নষ্ট হয়ে পড়েছে। আবার কোনো কোনো যন্ত্রপাতিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করে নতুন করে আবার সেগুলো কেনা হচ্ছে, যাতে শুধু সরকারের অর্থেরই অপচয় হচ্ছে। সূত্র জানায়, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অধীন রাজধানীর ফুলবাড়িয়ায় অবস্থিত সরকারি কর্মচারী হাসাপাতালের জন্য একটি ১৪ তলা ভবন নির্মাণ অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। ইতিমধ্যে এই হাসপাতাল ভবনটি চারতলা পর্যন্ত নির্মাণ হয়েছে। বাকি ১০ তলা কবে নির্মাণ হবে কিংবা ১৪ তলা পর্যন্ত অনুমোদন পাওয়া যাবে কি না সেটি এখনো নিশ্চিত নয়। যদিও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, কর্মচারী হাসপাতালের জন্য ১৪ তলা ভবন নির্মাণ প্রকল্পটি ইতিমধ্যে একনেক সভায় অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এখন সেটির জিও জারির অপেক্ষায় রয়েছে। অথচ এই ভবনের নির্মাণকাজ শেষ না হলেও হাসপাতালের জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা যন্ত্রপাতি ক্রয় করতে দরপত্র আহ্বান করে সেগুলো কেনাকাটাও শুরু হয়ে গেছে। ইতিমধ্যে এই হাসপাতালের জন্য যে সিটিস্ক্যান মেশিন কেনা হয়েছিল, সেটিও গত এক বছর অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে। কোনো কাজে আসেনি। একইভাবে একটি এমআরআই মেশিন কেনা হয়েছে ২২ কোটি টাকা ব্যয়ে। সেটিও কোনো কাজে আসছে না। পড়ে আছে অব্যবহৃত অবস্থায়। সূত্র জানায়, সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের জন্য একটি এসটিইএম সেল থেরাপি মেশিন কেনা হয়েছিল ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে। অথচ এ রকম মেশিনের বাজারমূল্য ৮০ থেকে ৯০ লাখ টাকা বলে জানা গেছে। কিন্তু ৭ কোটি টাকা দিয়ে এই মেশিনটি কেনা হলেও সেটি রোগীদের কোনো কাজে আসছে না। কারণ এই থেরাপি দিতে হলে আরও ৮০ হাজার টাকা মূল্যের পৃথক আরেকটি মেশিন প্রয়োজন হয়। কিন্তু রোগীদের এ নিয়ে আগ্রহ নেই। শুধু সিটিস্ক্যান মেশিন, থেরাপি যন্ত্র বা এমআরআই মেশিন নয়, বিকল হয়ে পড়ে আছে মেমোগ্রাফি মেশিনও। তিন বছর ধরে এটি অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে। দাঁতের এক্স-রে করার জন্য ওপিজি মেশিন কেনা হলেও সেটিও আজ পর্যন্ত চালু হয়নি। হাসপাতাল সূত্র জানায়, ওই হাসপাতালে আজ পর্যন্ত ফিজিওথেরাপি বিভাগ চালু না হলেও সরকারি অর্থ ব্যয় করে মেশিন কেনা হয়েছে, যা কোনো কাজেই আসছে না। আরও মজার তথ্য হচ্ছে, এই হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারের চারটি টেবিল কেনা হয়েছিল। কিন্তু সেগুলো ব্যবহার না করে উপরন্তু সেগুলোকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করে আরও চারটি অপারেশন টেবিল কেনা হয়েছে, যা রীতিমতো হরিলুট! এখন এই হাসপাতালের জন্য অ্যানেসথেশিয়া ও ভেন্টিলেশন মেশিন কিনতে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এই মেডিকেল যন্ত্রপাতিগুলো সরবরাহ করবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। দরপত্রের শর্তানুযায়ী, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জার্মানির লুবেক শহরে অবস্থিত ড্রাগারওয়ের্ক এজি অ্যান্ড কাগা কোম্পানি থেকে ওই যন্ত্রপাতি সরবরাহ করছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য, অর্থাৎ সরবরাহকারী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সত্যি সত্যি জার্মানি থেকে যন্ত্রপাতি সরবরাহ করছে, নাকি চীনের যন্ত্রপাতি দিয়ে সেটিকে জার্মানি বলে চালিয়ে দিচ্ছে তা যাচাই করতেই সরকারের এক অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের প্রতিনিধি দল জার্মানি যাচ্ছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্রতিনিধি দলটির ৮ থেকে ১৪ মে পর্যন্ত জার্মানির লুবেক শহরে ওই কোম্পানি পরিদর্শনে যাওয়ার কথা ছিল। সে অনুযায়ী জিও জারি হয়েছিল। কিন্তু কিছু জটিলতার জন্য নির্ধারিত সময়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি। জানতে চাইলে প্রতিনিধি দলের সদস্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. আলি কদর গণমাধ্যকে বলেন, হাসপাতালের জন্য যে অ্যানেসথেশিয়া ও ভেন্টিলেশন মেশিন কেনা হচ্ছে, তা যাচাই-বাছাই করতে গত মাসেই তাদের জার্মানি যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মেশিন সরবরাহকারী ওই কোম্পানি থেকে অফার লেটার না আসায় তারা মে মাসে যেতে পারেননি। এখন অফার লেটার এসেছে। তারা ইতিমধ্যে ভিসার জন্য জার্মান দূতাবাসে আবেদন করেছেন। ভিসা পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তারা জার্মানি যাবেন। কত দিনের সফরে যাচ্ছেন জানতে চাইলে এই কর্মকর্তা বলেন, ‘আগে সাত দিনের একটা শিডিউল ছিল। কিন্তু জার্মান কোম্পানি যে অফার লেটার পাঠিয়েছে তাতে পাঁচ দিনের কথা উল্লেখ করেছে। এ হিসেবে আমরা এখন পাঁচ দিনের জন্য যাব। হাসপাতালের ভবন এখনো নির্মাণ হয়নি অথচ যন্ত্রপাতি কেনা হচ্ছে আগেই- এ বিষয়ে জানতে চাইলে সরকারের এই যুগ্ম সচিব বলেন, আমার মনে হয় বর্তমান যে হাসপাতাল রয়েছে, এর জন্যই এগুলো কেনা হচ্ছে। আর ১৪ তলা ভবনের বিষয়ে ইতিমধ্যে একনেকের অনুমোদন পাওয়া গেছেও বলে জানান তিনি।

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *