June 18, 2024, 3:04 pm

তথ্য ও সংবাদ শিরোনামঃ
শতভাগ বেতন-বোনাস নিশ্চিত করল ময়মনসিংহ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ ভালুকায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ ঈদ যাত্রা নিরাপদ করতে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে, সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী লায়ন মো: গনি মিয়া বাবুল বঙ্গবন্ধুর আদর্শের জাগ্রতপ্রাণ সিএমপির আকবরশাহ্ থানার অভিযানে মাদক মামলায় গ্রেফতার ০১ ফেনীর খামার থেকে ১৩ গরু লুটে জড়িত দুজন চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার। চবিতে নির্জন জায়গায় ছিনতাইয়ের কবলে বিএমএ শিক্ষার্থী। ত্বক ছাড়াও শরীরের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাবার শশা পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে লায়ন গনি মিয়া বাবুল এর শুভেচ্ছা ভালুকায় ২টি চোরাই পিকাপ গাড়ীসহ চক্রের ৫ সদস্য আটক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষক চিকিৎসক-ছাত্র ছাত্রীদের মিলনমেলা। ঈদুল আজহায় যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায় করলে পরিবহন মালিক ও সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শিশুদেরকে দেশীয় ফল খাওয়ার প্রতি উৎসাহিত করতে হবে, লায়ন গনি মিয়া বাবুল সবার উপরে মায়ের আঁচল তাহার উপরে নাই ২ নভেম্বর বীর মুক্তিযোদ্ধা আহসান উল্লাহ মনি স্বদেশ বিচিত্রা সম্মাননায় ভূষিত হবেন। প্রশাসনে নীতি বাস্তবায়নে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোক না রাখতেই মুক্তিযোদ্ধা কোটার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে স্বাধীনতা বিরোধীরা কুলাউড়া বিএনপির ৩ নেতার মুক্তি। এড আবেদ রাজার অভিনন্দন। ত্রিশালে দস্যুতা মামলার ৬ আসামী গ্রেফতার সহ গাড়ি উদ্ধার ভালুকায় ভূমিসেবা বিষয়ক জনসচেতনতামূলক সভা শরীয়তপুরে ২০৯টি পরিবারসহ সারাদেশে ৫ম ধাপে ১৮,৫৬৬ পরিবারকে জমি ও গৃহ হস্তান্তর করলেন প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সোয়া তিন কোটি টাকার উন্নয়ন কাজে ঘুষ দিতে হয়েছে ৬১ লাখ টাকা! কৃষক-শ্রমিক-মেহনতি মানুষের কল্যাণে এই বাজেট নয়, তৈমুর আলম খন্দকার ঝড়ো হাওয়ায় মরা গাছের ডাল ভেঙে পড়ে পথচারীর মৃত্যু। গলি থেকে রাজপথ বৃটেনের প্রধান মন্ত্রীর স্ত্রীর উত্থানের নেপথ্যে এক বাঙালি মহিলার অবদান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে মহৎ ব্যক্তিদের মিলনমেলা ২০২৪-২৫ সালের জাতীয় বাজেট প্রসঙ্গে একটানা ৩ দিন বৃষ্টির পূর্বাভাস আঁধারে আলো, অর্পিতার অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরার ইতিহাস বাংলাদেশের উপকূল অঞ্চল রক্ষায় টেকসই বেড়িবাধ ও সবুজ বেষ্টনী এবং ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ত্রিশাল থানা পুলিশের অভিযানে ০৩টি চোরাই গরুসহ গ্রেফতার ৩

আত্মহত্যা থেকে সন্তানকে বাঁচাতে হলে নিতে হবে বিভিন্ন উদ্যোগ

আত্মহত্যা থেকে সন্তানকে বাঁচাতে হলে নিতে হবে বিভিন্ন উদ্যোগ

আনোয়ার হোসেন তরফদার, ভালুকা প্রতিনিধি ঃ সৃষ্টি কর্তার এই সুন্দর পৃথিবীতে প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করে সকল মানুষ সুন্দর ভাবে্ বাঁচতে চায়। পৃথিবীতে কেউ অকালে মৃত্যুবরণ করতে চায়না । তাই তো মৃত্যু এবং জীবন কিন্তু বিপরীত নয় বরং মৃত্যু হলো জীবনের অংশ। মানবদেহে অক্সিজেন ও কার্বন ডাই অক্সাইডের আদান প্রদান বন্ধ হয়ে গেলে মানব দেহের আর কোন মূল্য থাকে না। ফলে মৃত্যুর মধ্য দিয়ে সশরীরে চিরবিদায় নেয়। কিন্তু সে মৃত্যু যদি অকাল অর্থাৎ আত্মহত্যা হয় তখন বলতেই হয় পৃথিবীর সবচেয়ে জঘন্য কাজ হচ্ছে নিজের প্রতি অবিচার করে আত্মহত্যার পথ বেছে নেওয়া কাজ। আত্মহত্যার খবর শুনে কেন যেন বুক কেঁপে ওঠে। তখন মনে হয় সুন্দর একটা ফুল ঝরে গেলে । সেই ফুলের রূপ আর দেখতে পাব না। কেন ফুল বললাম কারণ পৃথিবীর প্রত্যেক সন্তান তার বাবা মায়ের কাছে একেকটি ফুল। সে যদি অকালে ঝরে যায় তাহলে সে ফুলের ঘ্রাণের বন্ধ হয়ে যাবে। পরিবারের শুরু হবে অশান্তি আর দুর্দশা। ফলে আমরা বলতে পারি আত্মহত্যা একটি সামাজিক ব্যাধি ।

বিশ্বে এই সামাজিক ব্যাধি ছড়িয়ে পড়ছে। প্রত্যেক দেশে কম বেশি দেখা যায় মানুষের আত্মহত্যা। ফলে এই ব্যাধির বাইরে নয় বাংলাদেশ। আমাদের সবুজ শ্যামল বাংলাদেশে আত্মহননের খবর হরহামেশই পত্রিকার পাতায় পাতায় দেখা যায়। এর থেকে পরিত্রাণের উপায় কি আমরা খুঁজে বের করতে পারছি? আত্মহত্যা বন্ধের যথাযথ পদক্ষেপ কি নিতে পারছি। আমাদের যুব সমাজ কোন পথে চলছে? প্রত্যেকটি আত্মহত্যার দায় কে নিবে? রাষ্ট্র না কি আত্মহত্যাকারীর পরিবার? কেন আত্মহত্যার খবর বিদ্যুৎ গতিতে বেড়েই চলছে। প্রশ্ন গুলোর করার আগে উদ্বিগ্ন হতে হয় এমন মর্মান্তিক ঘটনায়। আত্মহত্যা কেউ হুট করে হয় না। এর পেছনে অনেক কারণ লুকিয়ে আছে।

ঠিক সময়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারলে অবশ্যই আত্মহত্যা ঠেকানো অসম্ভব বলে কিছু নেই। আমাদের সমাজে যে আত্মহত্যা গুলো হচ্ছে, তার খবর প্রথমে দিতে হয় থানায়, তারপর স্থানীয় জনপ্রতিনিধি আর জনপ্রতিনিধিরা থানায় একটা মুচলেকা দিয়ে লাশ নিয়ে দাফন করে দেয়। কিছুদিন পর এটা নিয়ে আর কারো কোন মাথা থাকেনা, তবে আসলে কি এটা সঠিক? আমি বলবো অবশ্যই না আমরা কেন আত্মহত্যা করলো, কি তার কারন সেগুলো খোঁজিনা বা খোঁজার চেষ্টা করি না। আমাদের দেশের প্রত্যেকটা আত্মহত্যার কারন যদি খোঁজা হত আর যাদের জন্য আত্মহত্যা করলো তাদের উপযুক্ত বিচার হতো তাহলে অনেক টা কমে আসতো এই সামাজিক ব্যাধি আত্মহত্যা।

আমাদের দেশে আত্মহত্যার কারণ হিসেবে দেখা যায় মেয়েদের ক্ষেত্রে বিয়ের কিছুদিন পর স্বামীর পরিবার থেকে ,যৌতুকের চাপ, অভাব, হতাশা, পারিবারিক কিংবা সামাজিক নির্যাতনের মতো ঘটনায় আত্মহত্যার একটা অন্যতম কারণ, আবার ইভটিজিং তো আছেই তারা ভাবত এটাই মুক্তির একমাত্র পথ। আর পুরুষের বেলায় প্রেমে ব্যর্থতা, অভিমান, নেশাগ্রস্ততা কিংবা জীবনের দায়ভার নেওয়ার সাহস না থাকাটাই হয়ে দাঁড়াত আত্মহত্যার কারণ। তবে সময় পরিবর্তনের সাথে সাথে আত্মহত্যার ধরণ কিছুটা পরিবর্তন এসেছে ফ্রি ফায়ার গেইম খেলতে না দেওয়ায় আত্মহত্যা, নতুন মোবাইল কিনে না দেওয়ায় আত্মহত্যা, নতুন পোশাক কিনে না দেওয়ায় আত্মহত্যা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় হতাশায় নিমজ্জিত হয়ে আত্মহত্যার দিকে ঝুঁকছে। নতুন মোটর বাইক কিনে দিতে হবে পরিবারের কাছে বায়না। অনেক ক্ষেত্রে পরকিয়া প্রেম , নিজের সন্তান দেখে ফেলা এগুলো অন্যতম কারন। আবার অনেকে মনে করেন জীবন দিয়ে কি হবে বেঁচে থাকলে তাই অনেক আত্মহত্যার পথ বেঁচে নিচ্ছে।

নৈতিক স্খলন, তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার, ব্ল্যাকমেইলিং এর কারণে কিশোর-কিশোরী, যুবক- যুবতী ও নারী- পুরুষদের মধ্যে আশংকাজনক হারে আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়েছে। মানুষ অতিমাত্রায় হতাশাগ্রস্ত ও সংবেদনশীল হওয়ায় আত্মহত্যার দিকে ঝুঁকে পড়ছে। সামাজিক বৈষম্য, পারিবারিক কলহ, মাদক, সন্তানের প্রতি অভিভাবকদের উদাসীনতা, পারিবারিক বন্ধন ভঙ্গুর হয়ে আসার মতো কারণগুলো প্রকট আকার ধারণ করায় মানুষের মধ্যে আত্মহত্যার মতো জঘন্য অপরাধের প্রবণতা বাড়ছে।

আমাদের এই সমাজে দুই ধরনের আত্মহত্যার ঘটনা প্রায় দেখা যায়, আগে থেকেই পরিকল্পনা করে, আয়োজন করে, সুইসাইড চিরকুট লিখে আত্মহত্যা করেন সেটাকে বলা হয় ডিসিসিভ সুইসাইড। আবার হুট করে আবেগের রাশ টানতে না পেরে আত্মহত্যা করেন সেটাকে ব হয় ইমপালসিভ সুইসাইড। তবে কিশোর-কিশোরী বা শিক্ষার্থীদের মধ্যে বেশি ডিসিসিভ সুইসাইড লক্ষ্য করা যায় কারণ তারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মৃত্যু আর আত্মহত্যা নিয়ে নিজের ইচ্ছার কথা প্রকাশ করেন। মাদকাসক্তি বা ইন্টারনেটে মাত্রারিক্ত আসক্তি আত্মহত্যায় সহায়তা করে।

এগুলোর পরও কিছু বিষয় আছে সারা রাত জেগে থাকা আর সারা দিন ঘুমানো। এমন কি পড়ালেখা, খেলাধুলা, শখের বিষয় থেকে নিজে দূরে রাখে। নিজেকে গুটিয়ে রাখে যে কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করে না। নিজেই নিজের ক্ষতি করেন যেমন প্রায়ই এঁরা নিজের ক্ষতি নিজেই করে থাকেন , বেশি বেশি ঘুমের ওষুধ খান। মনমরা হয়ে থাকে কাজে প্রতি উৎসাহ হারিয়ে ফেলে নিজেকে সব সময় দোষী ভাবতে শুরু করে। এমন লক্ষণ প্রকাশ পেলে তার প্রতি বিশেষ যত্ম নিতে হবে এবং প্রয়োজনে মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ দিতে হবে।

তাই নিজে সচেতন হই, অপরকেও সচেতন হতে সাহায্য করি। নিজের জীবনকে উপভোগ করি। একাকিত্ব ভালো না লাগলে পরিবারের অন্য সদস্যদের বুঝিয়ে বলতে হবে এবং সুযোগ থাকলে ভ্রমণে যেতে হবে। মাদকাসক্তি বা ইন্টারনেটে মাত্রারিক্ত আসক্তি থেকে বিরত থাকতে হবে। পড়ালেখা, খেলাধুলা, শখের কাজে ব্যস্ত থাকতে হবে। আত্মহত্যা প্রতিরোধ করতে হলে সবাইকে যার যার ক্ষেত্র থেকে একযোগে কাজ করতে হবে। শিশুদের বিকাশের সময় তাদের এমনভাবে গড়ে তুলতে হবে, যাতে তারা সফলতার মতো ব্যর্থতাকে মেনে নিতে পারে। তার জন্য প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তর থেকে গড়ে তুলতে হবে। আত্মহত্যার উপকরণ, যেমন ঘুমের ওষুধ, কীটনাশকের সহজলভ্যতা কমাতে হবে। প্রেসক্রিপশন ছাড়া ঘুমের ওষুধ বিক্রি বন্ধ করতে হবে। যেকোনো ধরনের মানসিক সমস্যা বা আত্মহত্যার ইঙ্গিত পেলে দ্রুত মনোরো

আমাদের প্রকাশিত তথ্য ও সংবাদ আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




All Rights Reserved: Duronto Sotter Sondhane (Dusos)

Design by Raytahost.com