Breaking News
June 14, 2019 - রেজিস্ট্রেশন ছাড়া অনলাইন পত্রিকা চলতে পারে না। -প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
June 12, 2019 - ইসলামী ফাউন্ডেশনের ডিজি দুর্নীতিবাজ শামীম মোহাম্মদ আফজালকে কারণ দর্শানোর নোটিশ করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।
June 5, 2019 - ঈদ মোবারক
June 1, 2019 - প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সৌদি আরবে লাল গালিচা সংবর্ধনা।
May 29, 2019 - ঢাকা মেডিক্যাল কলেজসহ সারা দেশে পাঁচ স্থানে আজ দুদকের বিশেষ অভিযান
May 22, 2019 - সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়া মহাসড়কে যানবাহন থামানো যাবে না। -আইজিপি
May 21, 2019 - সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব দিতে হবে
May 19, 2019 - ভর্তুকি দিয়ে হলেও চাল রফতানি করা হবে। -অর্থমন্ত্রী
May 17, 2019 - আজ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ৩৮ বছর
May 12, 2019 - ৫২ টি মানহীন ভেজাল পণ্য ক্রয় বিক্রয় থেকে বিরত থাকুন।
May 10, 2019 - স্থগিত হচ্ছে ৪৭ হাজার মুক্তিযোদ্ধার ভাতা।
May 9, 2019 - দুর্বৃত্তদের দল বিএনপি গণতন্ত্রের বড় শত্রু -তথ্যমন্ত্রী
May 9, 2019 - সদ্য বিদায়নেয়া সাবেক সিআইডি-প্রধানের কাছে মুক্তিযোদ্ধা সম্মানি ফেরত চেয়েছে মন্ত্রণালয়

‘শবে বরাত’ ইবাদতের মাধ্যমে উৎযাপনের প্রমাণ রাসূলুল্লাহ (সঃ) থেকে পাওয়া যায় এবং এটি নতুন প্রচলিত কোন কিছু নয়।

Spread the love

চন্দ্র মাসের মধ্যে পবিত্র শা’বান মাস অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। এ মাসের ১৫ তারিখের রাত উল্লেখযোগ্য পাঁচ রাতের একটি। যার ভিত্তি ও তাৎপর্য কুরআন ও সুন্নাহ দ্বারা প্রমাণিত। এতদসত্ত্বেও কতিপয় আলেম নামধারী জালিম বিভিন্ন ওয়াজ নসীহতে, মিডিয়ায়, যেমন: ইন্টারনেট, টিভি, পুস্তক, পত্রিকা ইত্যাদির মাধ্যমে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে, যা আদৌ সঠিক নয়। এদের কারণে ‘লাইলাতুল বরাত’ বা শবে বরাত উৎযাপনের ভিত্তি ও তাৎপর্য পবিত্র কুরআন, সুন্নাহ্ দ্বারা প্রমাণ করার জন্য আমার এ সামান্য প্রয়াশ।
‘শবে বরাত’ পাঁচটি মর্যাদাপূর্ণ রাতসমূহের একটি। এ রাত ইবাদতের রাত হিসেবে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর যুগ থেকে স্বীকৃত হয়ে আসছে। এ রাত স্বয়ং রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পালন করেছেন। তাই এ রাতে ইখলাছের সাথে আমল করা অত্যন্ত ফযিলতপূর্ণ। এ প্রসঙ্গে কুরআন ও সুন্নাহর অভিমত তুলে ধরছি, যাতে পাঠকরা সহজেই এ রাতের মর্যাদা বুঝতে পারেন।

পবিত্র কুরআনের আলোকে মহান রাব্বুল আলামীন ইরশাদ করেছেন
“নিশ্চয় আমি এটি (কুরআন মাজিদ) নাযিল করেছি এক বরকতময় রাতে, অবশ্য আমি সতর্ককারী। সেই রাতে প্রত্যেক প্রজ্ঞাপূর্ণ কাজের ফয়সালা হয়।” (সূরা আদ-দুখান,আয়াত-৩)
এ আয়াতখানা ‘শবে বরাত এর মর্যাদা সম্পর্কে অবতীর্ণ হয়েছে।

সুন্নাহর আলোকে, ‘শবে বরাত’ উৎযাপন ও তাৎপর্য সম্পর্কে অসংখ্য হাদিস শরিফ বর্ণিত রয়েছে। তন্মধ্য থেকে কয়েকটি উল্লেখ করা হল।
হযরত আলী রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন “রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন শাবান মাসের পনের তারিখ উপনীত হলে তোমরা ইবাদতের মাধ্যমে রাত উৎযাপন কর এবং দিনে রোযা রাখ। কেননা, মহান রাব্বুল আলামীন সূর্য অস্তমিত হবার পর প্রথম আসমানে অবতীর্ণ হয়ে বলেন, ক্ষমা প্রার্থনা করার কে আছে, যাকে আমি ক্ষমা করব ? রিযিক প্রার্থনা করার কে আছে, যাকে আমি রিযিক প্রদান করব ? কে বিপদগ্রস্ত আছে, যাকে আমি বিপদ মুক্ত করব ? এভাবে ফজর পর্যন্ত বিভিন্ন কিছু প্রার্থনার জন্য আহ্বান করতে থাকবেন। (ইমাম ইবনু মাজাহ, ইমাম বায়হাকী,)
উল্লেখ্য, হাদিস শরিফে বর্ণিত “আল্লাহ তায়ালা প্রথম আকাশে অবতরণ করেন” এর মর্মার্থ হচ্ছে শবে বরাতের রাতে আল্লাহ তায়ালা আপন বান্দাদেরকে অতীব নৈকট্য প্রদান করেন। বাক্যটি রূপকার্থে প্রয়োগ হয়েছে। যেমন আমাদের সমাজে একটি প্রবাদ প্রচলিত আছে। “কেউ যদি আমার জন্য এক হাঁটু পানিতে নামে, আমি তার জন্য একগলা পানিতে নামি। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে সামান্য কিছুর বিনিময়ে অধিক প্রতিদান দেয়া। কারণ আল্লাহ তায়ালা উঠা-নামা, স্থান-কাল ইত্যাদি অবস্থা থেকে পবিত্র।

হযরত আয়েশা রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন “আমি এক রাত রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে ঘরে পাইনি। অতঃপর আমি ঘর থেকে বেরিয়ে তাঁকে জান্নাতুল বাকীতে পেয়েছি। তিনি আমাকে বললেন, তুমি কি ভয় কর যে আল্লাহ্ এবং তাঁর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তোমার উপর অন্যায় করবেন ? আমি বললাম, হে আল্লাহ্র রাসূল মূলত তা’ নয়; বরং আমি মনে করেছি যে আপনি আপনার কোন স্ত্রীর নিকট এসেছেন। অতঃপর তিনি বললেন, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ্ শা’বান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতে কুদরতিভাবে প্রথম আসমানে আসেন আর ‘কল্ব’ নামক গোত্রের ছাগলের সমুদয় পশমের চেয়েও বেশি সংখ্যক ব্যক্তিদেরকে ক্ষমা করে দেন। (তিরমিযী) রাসূলুল্লাহর এ হাদিসের ব্যাখ্যায় . “কল্ব গোত্রের ছাগল সবচেয়ে বেশি হবার কারণে তিনি এ গোত্রের ছাগলের কথা উল্লেখ করেছেন।” মূলত সংখ্যা নয়; বরং আধিক্য বোঝানোই উদ্দেশ্য। উল্লিখিত হাদিস শরিফ দ্বারা বোঝা গেল যে, ‘লাইলাতুল বরাত’ রাসূলের হাদিস দ্বারা প্রমাণিত।

হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমাকে রাসূলুল্লাহ্ জিজ্ঞেস করলেন- “হে আয়েশা, আজ কোন রাত তুমি জান ? না, ইয়া রাসূলাল্লাহ। তিনি বললেন, আজ শাবান মাসের ১৫ তারিখের রাত, এ রাতে লিপিবদ্ধ করা হয় তাঁদের নাম, যারা এ বছর জন্মগ্রহণ করবে, যারা মারা যাবে এবং এ রাতে তাদের আমল আল্লাহ্র নিকট নেয়া হয় আর তাদের রিযিক অবতীর্ণ করা হয়। এরপর তিনি জিজ্ঞেস করলেন, হে আল্লাহ্র রাসূল, কোন ব্যক্তি কি আল্লাহ্র রহমত ব্যতীত জান্নাতে প্রবেশ করবে ? তিনি বললেন, আল্লাহ্র রহমত ব্যতীত কোন ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশ করবে না ? অতঃপর আমি বললাম, আপনিও ? তিনি বললেন, আমিও নই; তবে আল্লাহ্ আমাকে তাঁর রহমত দ্বারা বেষ্টন করে নিয়েছেন। তিনি এ বাক্য তিনবার বলেছেন। (ইমাম বায়হাকী)

হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা বলেন-  “রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন যে, চারটি রাতে আল্লাহ্ রহমতের দরজা খুলে দেন। এগুলো হল  ঈদুল ফিতরের রাত, ঈদুল আযহার রাত, শাবান মাসের পনের তারিখের রাত এবং আরাফার রাত। ১৫ শাবান রাতে মৃত্যু নির্ধারণ, রিযিক বন্টন আর হেদায়েত প্রাপ্তদের নাম লিপিবদ্ধ করা হয়।

লাইলাতুল বরাত উৎযাপন
‘লাইলাতুল বরাতের রাতটি তাৎপর্যপূর্ণ হওয়ার কারণে নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজেই ইবাদতের মাধ্যমে এ রাত উদ্যাপন করেছেন। যেমন হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা হতে বর্ণিত “রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ রাতে নামায আদায় ছিলেন এবং সিজদায় দীর্ঘ অবস্থানের কারণে আমি মনে করলাম যে, তিনি ইনতেকাল করেছেন। তাঁর অবস্থা জানার জন্য আমি তাঁকে নাড়া দিলে তিনি নড়ে উঠেন এবং আমি তাঁকে সিজদায় বলতে শুনেছি “হে আল্লাহ্, আপনার কাছে ক্ষমা চেয়ে আপনার শাস্তি থেকে পানাহ চাই, আপনার সন্তুষ্টির মাধ্যমে আপনার রাগ থেকে আশ্রয় চাই আর আপনার যথাযথ প্রশংসা আমি করতে পারব না; এজন্য আমি আপনার সেই প্রশংসা করছি, যা আপনি আপনার জন্য করেছেন। এরপর সিজদাহ থেকে মাথা উত্তোলন করেছেন। অতঃপর নামায শেষ করে আমাকে বললেন, হে আয়েশা, আল্লাহ্র রাসূল কি তোমার সাথে কোন ধরণের খিয়ানত করেছেন ? আমি বললাম, আল্লাহ্র শপথ করে বলছি, এ ধরণের কোন কিছু নয়; বরং সিজদায় আপনাকে দীর্ঘকাল অবস্থানের কারণে আমি মনে করেছি যে, আপনি ইনতেকাল করেছেন। এ কথা শুনে তিনি বললেন, তুমি কি জান না এটি বরাতের রাত ? আমি বললাম, আল্লাহ্ এবং তাঁর রাসূল ভাল জানেন। এরপর তিনি বললেন, আজ ‘শাবান মাসের পনের তারিখ। এ রাতে মহান রাব্বুল আলামীন ক্ষমা প্রার্থনাকারীদের ক্ষমা করে দেন। রহমত প্রার্থনাকারীদের রহমত প্রদান করেন এবং বিদ্বেষীদের অবকাশ দেন।

হযরত মুয়ায বিন জাবাল রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, “রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি চন্দ্র বছরের পাঁচটি রাত তথা শাবান মাসের পনের তারিখের রাত, ঈদুল ফিতরের রাত, ঈদুল আযহার রাত, আরাফার রাত এবং জিলহাজ্ব মাসের আট তারিখ রাত উৎযাপন করবে, সেই জান্নাতের হক্বদার হবে।

হযরত কাসীর বিন দীনার থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন- “যে ব্যক্তি সওয়াবের নিয়তে শাবান মাসের ১৫ তারিখের রাত তথা লাইলাতুল বরাত এবং দুই ঈদের দুই রাত উৎযাপন করবে, তাঁর অন্তর মরার দিনেও মরবে না। এভাবে রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজে এই রাত উৎযাপন করে স্বীয় উম্মতকে নির্দেশ দিয়েছেন যে, তোমরা এ রাতে নামায আদায় কর, আল্লাহ্কে স্মরণ কর এবং দিনে রোযা রাখ।

উল্লিখিত বর্ণনা থেকে বোঝা গেল যে, লাইলাতুল বরাতে আল্লাহ্ বিশেষ রহমত অবতীর্ণ হয়, বান্দার রিযিক বন্টন করা হয়, মৃত্যুর সময় লিপিবদ্ধ করা। অগণিত পাপীদের ক্ষমা করা হয়। তাই এ রাতে জেগে থেকে ইবাদতের মাধ্যমে অতিবাহিত করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

লাইলাতুল বরাতের নামকরণ : লাইলাতুল বরাতের’ বেশ কয়েকটি নাম রয়েছে। এটি বিভিন্ন কিতাবে বিভিন্ন নামে পরিচিত। যেমন হাদিস শরিফে এটি ‘লাইলাতুন নিস্ফ মিন শা’বান’ নামে এসেছে। আবার স্থানভেদে এর পরিচিতির ভিন্নতা লক্ষ্য করা যায়। যেমন উপমহাদেশে এটি ‘শবে বরাত’ নামে অধিক পরিচিত। তবে ‘লাইলাতুল বরাত’ নামটিও অধিকাংশ মানুষ জানে। ‘লাইলাতুল বরাতের’ কতিপয় নাম হল (১) ‘লাইলাতুম মুবারাকাহ’ তথা বরকতময় রাত; কেননা এতে নেককারদের ওপর অধিক পরিমাণে বরকত অবতীর্ণ হয়। এ বরকত ‘আরশ’ থেকে ‘তাহ্তাস্ সারা’ পর্যন্ত পৌঁছে (২) ‘লাইলাতুর রহমত’ বা রহমতের রাত; কেননা এ রাতে আল্লাহ্র বিশেষ রহমত অবতীর্ণ হয় (৩) ‘লাইলাতুল বরাত’ বা মুক্তির রাত; কেননা এ রাতে মুমিন ব্যক্তির মুক্তি লেখা হয় এবং অসংখ্য জাহান্নামীদের মুক্তি দেয়া হয়। (৫) লাইলাতুল ক্বিস্মাহ ওয়াত্-তাক্বদীর বা বন্টনের রাত; কেননা, এ রাতে মানুষের রিযিক বণ্টন করা হয় (৬) ‘লাইলাতুর তাগফীর’ বা ক্ষমার রাত। ইমাম সবুকী বলেন, এ রাতে অপরাধীদের অপরাধ ক্ষমা করা হয় (৭) ‘লাইলাতুল ইজাবা’ বা দোয়া কবুলের রাত, কেননা এ রাতে দোয়া কবুল হয়। হযরত আব্দুল্লাহ ইবন ওমর রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমা বলেন, এ রাতটি দোয়া কবুল হয় এমন পাঁচ রাতের একটি (৮) ‘লাইলাতুল হায়াত’ বা হায়াতের রাত। (৯) ‘লাইলাতু ঈদিল মালায়িকা’ বা ফেরেশতাদের খুশির রাত কেননা এটি ফেরেশতাদের দুটি ঈদের একটি (১০) ‘লাইলাতুত্-তাজীম’ বা সম্মানিত রাত (১১) ‘লাইলাতুল গুফরান ওয়াল ইতকি মিনাল নিরান’ বা ক্ষমা করার রাত এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তির রাত (১২) ‘লাইলাতুল ক্বদর’ বা নির্ধারণের রাত; কেননা এ রাতে মানুষের হায়াত-মৃত্যু ও রিযিক নির্ধারণ করা হয় (১৩) ‘লাইলাতুস্ সক্’ বা দফতর লিপিবদ্ধের রাত। কেননা এ রাতে আমলের দফতর লিপিবদ্ধ করা হয়। (১৪) ‘শবে বরাত’ বা মুক্তির রাত। এটি উপমহাদেশে প্রচলিত।

লাইলাতুল বরাতের আমল
এ রাতের উল্লেখযোগ্য কতিপয় আমলের বিবরণ সংক্ষিপ্ত আকারে নিম্নে উল্লেখ করা হল।
(ক) নামায : নিঃসন্দেহে নামায একটি শ্রেষ্ঠ ইবাদত। উত্তম সময়ে আদায় করার কারণে এটির সওয়াব ও মর্যাদা আরো দ্বিগুণ হয় যেমন কোন সরকারি কর্মচারীর বেতন বিশেষ দিনের কারণে দ্বিগুণ হয়। অসংখ্য সহীহ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত হয়, রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামও এ রাতে নামায আদায় করতেন এবং তাঁর উম্মতকেও ইবাদতে মশগুল থাকার নির্দেশ দিয়েছেন।
সলফে সালেহীনগণ এ রাতে একটি বিশেষ নামায আদায় করতেন, যার বর্ণনা শাইখ আব্দুল কাদের জিলানী ‘গুনিয়াতুত্-তালেবীন’ গ্রন্থে, ইমাম গাজ্জালী; ইহ্ইয়াউ উলুমিদ্দীন’ গ্রন্থে, শাইখ আবু তালেব মক্কী’ ‘কুতুল কুলুব’ গ্রন্থে, ইবনু রজব হাম্বলী ‘লাত্বায়িফুল মায়ারিফ গ্রন্থে, শাইখ ইসমাইল হক্বী’ তাফসীরে রুহুল বয়ান’ গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন। এ নামাযের নাম ‘সালাতুল খাইর’ ও ‘সালাতুল আল-ফিয়্যাহ’। এ ‘সালাতুল খাইর’ হচ্ছে একশ রাকাত। এ নামায পড়ার নিয়ম হচ্ছে প্রতি রাকাতে দশবার করে সূরা ইখলাস পড়বে সূরা ফাতিহা পড়ার পর। দুই রাকাতের নিয়্যত করে পঞ্চাশ সালামে একশ রাকাত পূর্ণ করবে অথবা যদি কেউ ইচ্ছে করে, তাহলে প্রতি রাকাতে একশবার সূরা ইখলাছ পড়ে দশ রাকাত পড়বে।
(খ) দোয়া করা  কোন কিছু পাওয়ার সম্পর্কটা চাওয়ার সাথে অত্যন্ত নিবিড়। না চাইলে তেমন কিছু পাওয়া যায় না। বান্দা আল্লাহ্র কাছে না চাইলে তিনি রাগ করেন; বরং চাইলে খুশি হন। কারণ আমরা তাঁরই প্রতি মুখাপেক্ষী। তিনি পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেন- “(হে মাহবুব) আমার বান্দারা যখন আমার ব্যাপারে আপনার নিকট জিজ্ঞেস করে, তাহলে আপনি বলে দিন আমি নিকটে রয়েছি। যখন প্রার্থনাকারী আমার নিকট প্রার্থনা করে, আমি প্রার্থনায় সাড়া দেই। সুতরাং তারাও আমার ডাকে সাড়া দিক, আমার প্রতি ঈমান আনুক, যাতে তারা সঠিক পথে চলতে পারে।” রাসূলুল্লাহ্ ইরশাদ করেছেন- “দোয়া হচ্ছে ইবাদতের মগজ। দোয়ার সময় যদি ‘লাইলাতুল বরাতের মত বরকতময় হয়, স্থান যদি সম্মানিত হয় যেমন হেরেম শরিফ, মসজিদে নববী, মসজিদে আক্বসা, নবী ও আউলিয়ায়ে কিরামের মাযার শরীফ ইত্যাদি এবং আসমায়ে হুসনা, নবী ও আউলিয়ায়ে কিরামের অসীলার মাধ্যমে যদি দোয়া হয়, তাহলে এ দোয়া কবুলের আশা প্রবল।
লাইলাতুল বরাতের রাতে মুমিনদের উচিত আল্লাহ্ কাছে নিজ গুণাহ্ মাফ, গুনাহ্ ঢেকে রাখা ও বালা মুসিবত দূর হওয়ার জন্য দোয়া করা এবং ইখলাসের সাথে তাওবা করা। কারণ, এ বরকতময় রাতে তিনি তাওবা কবুল করেন এবং অগণিত লোকদের ক্ষমা করে দেন।

(গ) অন্যান্য আমল : রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ রাতে জান্নাতুল বক্বীতে গিয়ে যিয়ারত করতেন এবং ঈসালে সওয়াব করতেন। তাই আমাদের জন্য এ রাতে নবী অলীদের মাযার শরীফ, পিতা-মাতা এবং আত্মীয়-স্বজনের কবর যিয়ারত করা মুস্তাহাব। যে কোন ভাল কাজ করা উত্তম যেমন কুরআন তিলাওয়াত করা বা শ্রবণ করা , হাদিস শরিফ পাঠ করা , তাসবীহ পাঠ করা, দান সদকা করা এবং নবী করিম রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাসের ওপর দরূদ পাঠ করা ইত্যাদি। যেমন হযরত জাফর সাদেক রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু বলেন, ‘যে ব্যক্তি শাবান মাসের প্রতিদিন নবী করিম রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ওপর সাতশত বার দরূদ পাঠ করবে, তাঁর দরূদ রাসূলের দরবারে পৌঁছানোর জন্য আল্লাহ্ তায়ালা অনেক ফেরেশতা নিয়োগ করবেন। অতঃপর তিনি তাঁদেরকে নির্দেশ দিবেন, যেন তাঁরা কিয়ামত পর্যন্ত দরূদ পাঠকারীর জন্য ক্ষমা চাইতে থাকে।’ হযরত আলী রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু বলেন, ‘আমি লাইলাতুল বরাতের অংশকে তিন ভাগে ভাগ করেছি। রাতের প্রথমভাগে আমি রাসূলুল্লাহর ওপর দরূদ পাঠ করি, ২য় ভাগে আল্লাহ্র নিকট ক্ষমা চাই এবং ৩য় ভাগে নামায আদায় করি। এ রাতে সদকা করাও উত্তম কাজ। কারণ গোপন সদকা আল্লাহ্র রাগ উপশম করে। এ কারণে হযরত যয়নুল আবেদীন রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু রুটি বা ময়দার বস্তা নিজ পিঠে বহন করে রাতের অন্ধকারে সদকা করতেন। মানুষের উপকারে আসে এমন প্রত্যেক বস্তু সদকা করা যাবে যেমন যায়নুল আবেদীনের মত রুটি দেওয়া। এ ধারাবাহিকতায় আমাদের দেশে প্রচলিত হালুয়া রুটি সদকা করতেও কোন আপত্তি নেই; বরং সওয়াবের কাজ। কারণ বরকতময় কোন সময়ে সদকা করা অন্য সময়ে সদকা করার চেয়ে উত্তম। যেমন রমজানে সদকা করলে অধিক সওয়াব পাওয়া যায়। শাবান মাসের পনের তারিখ রাতে হালুয়া দেওয়া সর্বপ্রথম প্রচলন করেন ওয়াযির ফখরুল মালিক মুহাম্মদ বিন আলী ৪০৭ হিজরীতে। তিনি অত্যন্ত দানবীর ছিলেন এবং প্রতিদিন এক হাজার গরিবকে পোশাক প্রদান করতেন। শাবান মাসের পনের তারিখ দিনে রোযা রাখা মুস্তাহাব। কেননা মহানবী নিজে রাখতেন এবং আমাদের রাখার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। হযরত আলী রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি এ দিনে রোযা রাখবে, সে অতীত ও ভবিষ্যৎ দুই বছরের মকবুল রোযার সওয়াব পাবে। সুতরাং সৎ কাজের মাধ্যমে এ রাত ও দিন অতিবাহিত করা উচিত।
কুরআন, সুন্নাত, সাহাবায়ে কেরামদের আমল ও উক্তির মাধ্যমে বোঝা যায় যে, শাবান মাসের পনের তারিখের রাত অত্যন্ত বরকতময়, যা জেগে ইবাদতের মাধ্যমে উৎযাপন করা মুস্তাহাব। সময়ের নিজস্ব কোন গুণ না থাকলেও অন্য কারণে তা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে যায়। যেমন সর্বোত্তম মাস হচ্ছে রমজান, কারণ রোযা ও কুরআন অবতীর্ণ হবার কারণে। সর্বোত্তম দিন হচ্ছে নবীর আগমনের দিন, যেহেতু তিনিই সবচেয়ে বড় নিয়ামত এবং তারপর হচ্ছে শুক্রবার। এভাবে ব্যক্তির কারণে স্থানের মর্যাদাও ভিন্ন হয়। যেমন রাসূলুল্লাহ্‘র রওজা শরিফের স্থানটি হলো আরশ, কুরছি, মক্কা, হেরেমসহ সকল স্থান থেকে উত্তম। এতে কারো দ্বিমত নেই। উল্লিখিত বর্ণনা থেকে সুস্পষ্টভাবে বোঝা যাচ্ছে যে, শবে বরাত উৎযাপন করা সম্পূর্ণ শরীয়ত সম্মত। এতদসত্ত্বেও কিছু বিরোধীমহল আমাদেরকে এ বরকতপূর্ণ রাতের আমল থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করে আর বলেবেড়ায় কুরআন-হাদীসে এ ব্যাপারে কিছুই নেই। এ সকল ব্যক্তিদের কথা থেকে আমাদের বেঁচে থাকা একান্ত প্রয়োজন। এ আমল নবী করিম রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর যুগ থেকে অদ্যাবধি হক্বপন্থীদের মধ্যে বিরাজমান রয়েছে এবং থাকবে।

উল্লিখিত বর্ণনা থেকে বোঝা যায় যে, ‘শবে বরাত’ ইবাদতের মাধ্যমে উৎযাপনের প্রমাণ রাসূলুল্লাহ (সঃ) থেকে পাওয়া যায় এবং এটি নতুন প্রচলিত কোন কিছু নয়।
মহান আল্লাহ এই মহিমান্বিত বরকতময় রাতে আমাদেরকে তার সান্নিধ্যে এসে ইবাদত বন্দেগী করার তাওফিক দান করুন।

লেখক ও প্রকাশকঃ
সুফী মোহাম্মদ আহসান হাবীব
তাসাউফ সাধক ও গবেষক


Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বাংলাদেশ

আজ দেশব্যাপী এনফোর্সমেন্ট অভিযান পরিচালনা করেছে দুদক।

আজ দেশব্যাপী এনফোর্সমেন্ট অভিযান পরিচালনা করেছে দুদক।

Spread the love

Spread the loveTweetদেশব্যাপী আজ ০৬টি এনফোর্সমেন্ট অভিযান পরিচালনা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক। অভিযান নং – ১ আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে টিকিট বিক্রয় রেলওয়ের অনিয়মের অভিযোগে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ও ফুলবাড়িয়া কাউন্টারে অভিযান পরিচালনা করেছে দুদক। দুদকের নিকট অভিযোগ আসে, রেলওয়ে টিকিট বিক্রয়ে নানাবিধ অনিয়ম হচ্ছে। এমনকি একদিন আগে লাইনে দাঁড়িয়েও কাউন্টারে টিকিট পাওয়া হচ্ছে […]

দুদক কর্তৃক মামলা দায়ের

দুদক কর্তৃক মামলা দায়ের

Spread the love

Spread the loveTweetসরকারি চাকুরিতে কর্মরত থেকে অর্পিত ক্ষমতার অপব্যবহার করে অবৈধ উপায়ে বৈধ পারিশ্রমিকের অতিরিক্ত হিসেবে ঘুষ গ্রহণ করে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত অর্জিত নগদ ৮০লক্ষ টাকা) সহ সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি প্রিজন পার্থ গোপাল বণিক – কে তার বাসা থেকে গ্রেফতার করে দুদকের টিম এবং এর প্রেক্ষিতে আজ দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়, ঢাকা – ১ এ […]

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক) ‘র প্রস্তাবিত হলিডে মোড়-বাজারঘাটা-লারপাড়া (বাস স্ট্যান্ড) প্রধান সড়ক প্রকল্পটি একনেক সভায় অনুমোদন।

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক) ‘র প্রস্তাবিত হলিডে মোড়-বাজারঘাটা-লারপাড়া (বাস স্ট্যান্ড) প্রধান সড়ক প্রকল্পটি একনেক সভায় অনুমোদন।

Spread the love

Spread the loveTweetএইচ,এম,আমান কক্সবাজার থেকে : ১৬ জুলাই ২০১৯ তারিখ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) সভায় কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রস্তাবিত হলিডে মোড়-বাজারঘাটা-লারপাড়া (বাস স্ট্যান্ড) প্রধান সড়ক সংস্কারসহ প্রশস্তকরণ প্রকল্পটি অনুমোদন লাভ করে। এ ব্যাপারে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লে: কর্নেল (অব:) ফোরকান আহমদ মুঠোফোনে বলেন, দীর্ঘ ২/৩ তিন […]

টেকনাফের ইয়াবা ডন জাফর চেয়ারম্যানের আলিশান বাড়ি ভাংচুর!

টেকনাফের ইয়াবা ডন জাফর চেয়ারম্যানের আলিশান বাড়ি ভাংচুর!

Spread the love

Spread the loveTweet এইচ এম আমান কক্সবাজার থেকে : সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের শীর্ষ ইয়াবা ডন ও তালিকাভূক্ত ইয়াবা কারবারি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমদের লেঙ্গুরবিলস্থ বাড়িতে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। ২৭ জুন ভোরে ঘটনাটি ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানায়। তবে কে বা কারা এ হামলা ও ভাংচুরের সাথে জড়িত এ ব্যাপারে কেউ মুখ খুলেনি। টেকনাফ […]

টেকনাফের শীর্ষ ইয়াবা কারবারি জামাল সিন্ডিকেট এখনো ধরাছোঁয়ার বাহিরে

টেকনাফের শীর্ষ ইয়াবা কারবারি জামাল সিন্ডিকেট এখনো ধরাছোঁয়ার বাহিরে

Spread the love

Spread the loveTweetএইচ এম আমান কক্সবাজার : কক্সবাজারের টেকনাফের হোয়াইক্যং এলাকার শীর্ষ ইয়াবা ও স্বর্ণ ব্যাবসায়ি জামাল সিন্ডিকেট এখনো থরাছোঁয়ার বাহিরে রয়েছে। এক সময় যুবদলের নেতা ছিল। বর্তমানে যুবলীগ নেতা। সে হোয়াইক্যং ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। গত বছর কানজর পাড়ার পিচ্চি বাবুল তাদের ১০টি স্বর্ণের বার কেড়ে নিয়ে পালিয়েছিল। ওই ঘটনায় স্বর্ণ ব্যাবসায়ি শাহজালালকে টেকনাফ […]

টেকনাফের শীর্ষ ইয়াবা কারবারি সৈয়দকে আইনের আওতায় আনার দাবী।

টেকনাফের শীর্ষ ইয়াবা কারবারি সৈয়দকে আইনের আওতায় আনার দাবী।

Spread the love

Spread the loveTweetএইচ এম আমান কক্সবাজার : কক্সবাজারের টেকনাফের নয়াবাজার পূর্ব সাতঘড়িয়া পাড়ার সৈয়দ হোসেন প্রকাশ দালাল বধুইয়া দীর্ঘদিন যাবৎ প্রশাসনের চোখে ফাঁকি দিয়ে মাদক কারবার চালিয়ে আসছে। বর্তমানে তিনি ইয়াবা ব্যবসায় একজন সফল মানুষ। এখন ক্ষমতাসীন দলকে ম্যানেজ করে নিজেকে আওয়ামী যুবলীগের নেতা পরিচয় দিয়ে আসছে। পাশাপাশি প্রশাসনকে হাত করে নিজেকে একজন সাদা মানুষ […]

কক্সবাজার কারা হাসপাতালের সিটে ঘুমায়  ইয়াবা কারবারিরা!

কক্সবাজার কারা হাসপাতালের সিটে ঘুমায় ইয়াবা কারবারিরা!

Spread the love

Spread the loveTweetএইচ এম আমান জেলা প্রতিনিধিঃ কক্সবাজার জেলা কারাগারের হাসপাতালটিতে যা ঘটে তার বিবরণ শুনলে যে কোন বিবেকবান মানুষও আফসোস করেন। হাসপাতালের যে সিট রয়েছে সেই সিটের উপরে থাকেন ইয়াবা কারবারিরা। আর নিচে থাকেন সিট যার নামে বরাদ্দ থাকে সেই হতভাগা অসুস্থ মানুষটি। কারাগার থেকে জামিনে বের হওয়া উখিয়ার আনিসুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি […]

কক্সবাজার জেলা কারাগারটি এখন ইয়াবা  কারবারিদের রাজস্থান !

কক্সবাজার জেলা কারাগারটি এখন ইয়াবা কারবারিদের রাজস্থান !

Spread the love

Spread the loveTweetএইচ এম আমান জেলা প্রতিনিধিঃ কক্সবাজার জেলা কারাগারে লাগামহীন অনিয়ম-দুর্নীতির ঘটনা ঘটছেবলে অভিযোগ উঠেছে। অনিয়ম-দুর্নীতির মাত্রা এমনই পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, কারাগারে আটক বন্দীদের নিকট ১ কেজি গরুর কাঁচা মাংশ বিক্রি করা হচ্ছে ১ হাজার ৭০০ টাকায়। সেই সাথে কাঁচা মুরগির মাংশ বিক্রি করা হচ্ছে কেজি প্রতি ৬০০ টাকা করে। তার উপর মাংস রান্না […]

বাংলাদেশের সকল থানার ওসিদের মোবাইল নাম্বার

বাংলাদেশের সকল থানার ওসিদের মোবাইল নাম্বার

Spread the love

Spread the loveTweetযে সকল কারনে এই সকল নম্বরে ফোন করার প্রয়োজন হতে পারে ১। কোন দূর্ঘটনার সংবাদ জানাতে ২। কোন অপমৃত্যু সংবাদ জানাতে ৩। অগ্নিকান্ডের সংবাদ জানাতে ৪। বড় ধরনের অপরাধ সংঘটনের প্রস্তুতির সংবাদ জানাতে ৫। কোন পলাতক/ফেরারী অপরাধীদের অবস্থান জানাতে ৬। মাদকদ্রব্য সম্পর্কে তথ্য প্রদানের জন্য ৭। অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র সম্পর্কে তথ্য প্রদানের জন্য ৮। […]

সরকারি খাদ্য গুদামের রক্ষকই ভক্ষক, চাল পাচারকালে হাতেনাতে আটক

সরকারি খাদ্য গুদামের রক্ষকই ভক্ষক, চাল পাচারকালে হাতেনাতে আটক

Spread the love

Spread the loveTweetমাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলার টেকেরহাট খাদ্য গুদামের চাল পাচারকালে হাতেনাতে দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় শনিবার সকালে গুদামের রক্ষকসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন রাজৈর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান। স্থানীয়রা জানায়, মাদারীপুরের টেকেরহাট সরকারি খাদ্য গুদামের রক্ষক গাজী সালাউদ্দিনসহ কয়েক কর্মকর্তা-কর্মচারি দীর্ঘদিন ধরে চাল পাচার করে আসছিল। শুক্রবার দুপুরে […]

১৬ আসামির মৃত্যুদণ্ড চেয়ে নুসরাত হত্যা মামলার চার্জশিট করা হয়েছে। -পিবিআই ডিআইজি

১৬ আসামির মৃত্যুদণ্ড চেয়ে নুসরাত হত্যা মামলার চার্জশিট করা হয়েছে। -পিবিআই ডিআইজি

Spread the love

Spread the loveTweetফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার চার্জশিট বুধবার (২৯ মে) দাখিল করা হবে। চার্জশিটে আসামি করা হয়েছে ১৬ জনকে। এই ১৬ আসামির বিরুদ্ধেই মৃত্যুদণ্ড চাওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (২৮ মে) ধানমন্ডিতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের প্রধান কার্যালয়ে নুসরাত হত্যা মামলার তদন্তের সর্বশেষ অগ্রগতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান পিবিআইয়ের প্রধান পুলিশের […]

বর্তমান সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। -আইনমন্ত্রী

বর্তমান সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। -আইনমন্ত্রী

Spread the love

Spread the loveTweetআইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গঠন করা। তার এ স্বপ্ন বাস্তবায়নে বর্তমান সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। ফলে বাংলাদেশে দিন দিন দুর্নীতি কমছে। সোমবার অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের দুর্নীতিবিরোধী কনভেনশনের (ইউএনসিএসি) বাস্তবায়ন পর্যালোচনা পর্বের দশম অধিবেশনে বক্তৃতাকালে তিনি এসব কথা বলেন। ২৭ […]

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায়  ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ ও দুস্থদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ ও দুস্থদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

Spread the love

Spread the loveTweetআজ বৃহস্পতিবার (২৩মে) চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার মোহনপুর, এখলাসপুর, জহিরাবাদ, কলাকান্দা, ষাটনল ও গজরা ইউনিয়নে ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’ আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত এবং দুঃস্থ অসহায় জনগনের মাঝে সরকারি ত্রাণ বিতরণ করেন চাঁদপুর-২ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব মোঃ নুরুল আমিন রুহুল এম.পি মহোদয়। উক্ত ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মতলব উত্তর উপজেলা […]

বালিশ ক্রয়ে দুর্নীতি !প্রত্যাহার করা হয়েছে নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুল আলমকে।

বালিশ ক্রয়ে দুর্নীতি !প্রত্যাহার করা হয়েছে নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুল আলমকে।

Spread the love

Spread the loveTweetপাবনার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের আওতাধীন গ্রিন সিটি প্রকল্পের আসবাবপত্র কেনা ও ফ্ল্যাটে ওঠানোর অনিয়মের ঘটনায় প্রত্যাহার করা হয়েছে নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুল আলমকে। আজ বুধবার (২২মে) গণপূর্ত বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মোঃ শাহাদাৎ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এছাড়া এ বিষয়ে তদন্তে গত রোববার দুটি কমিটি গঠন করেছে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়। ওই দিন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ […]

পুরুষরাও নীরব নির্যাতনের স্বীকার, কিন্তু বুঝা যায়না !

পুরুষরাও নীরব নির্যাতনের স্বীকার, কিন্তু বুঝা যায়না !

Spread the love

Spread the loveTweetবিবাহিত জীবনে যে শুধু নারীই নির্যাতিত হন তা কিন্তু নয়। পুরুষরাও নির্যাতিত হন। আমি শতভাগ নিশ্চিত হয়েই কথাটা বলছি। প্রশ্নটা হচ্ছে কিভাবে? অধিকাংশ মেয়ে বিয়ের পর শ্বশুরবাড়ির লোকদের দেখতে পারেনা, তাদের সাথে ভাল ব্যবহার করতে চান না আর করলেও দায় সারা ভাব থাকে। তাদের পিছনে টাকা খরচ করা নিশ্চিত অপচয় বলে মনে করে। […]